Print

ইমাম হুসাইনের বাণীতে ইমাম মাহদীর(আ.) আবির্ভাব

অনুসন্ধান  صفحه اصلی خبر মতামতজরিপ  :   Tuesday, December 12, 2017 নির্বাচিত সংবাদ : 27925

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: বলুনঃ সত্য এসেছে এবং মিথ্যা বিলুপ্ত হয়েছে। নিশ্চয় মিথ্যা বিলুপ্ত হওয়ারই ছিল। (সূরা বণী ইসরাইল-৮১)

ইমাম বাকের (আ.) উক্ত আয়াত সম্পর্কে বলেছেন: যখন ইমাম মাহদী (আ.) আবির্ভূত হবেন তখন সকল বাতিল শাষণ ক্ষমতা ধ্বংস হয়ে যাবে। (রওযাতুল কাফি, পৃষ্ঠা ২৮৭)

নির্ভরযোগ্য শিয়া-সুন্নী হাদীস গ্রন্থসমূহে মহানবী (সা.) থেকে এতদপ্রসঙ্গে বর্নিত হয়েছে : لو لم يبق من الدنیا إلا یوم لبعث الله رجلا مناّ یملأ¬ها  عدلا کما ملئت جورا

দুনিয়া ধ্বংস হতে মাত্র একদিনও যদি অবশিষ্ট থাকে তাহলে মহান আল্লাহ (ঐ একদিনের মধ্যেই) আমাদের (আহলে বাইতের) মধ্য থেকে এক ব্যক্তিকে অবশ্যই প্রেরণ করবেন যে এ পৃথিবী যেভাবে অন্যায়-অবিচারে পরিপূর্ণ হয়ে যাবে ঠিক সেভাবে ন্যায় ও সুবিচার দিয়ে তা পূর্ণ করে দেবে। (মুসনাদ-ই আহমদ ইবনে হাম্বল, ১ম খণ্ড, পৃ.৯৯, বৈরুত, দারুল ফিকর কর্তৃক প্রকাশিত)

ইমাম হুসাইন(আ.) বলেছেন: «سمعت الحسین بن علی علیه السلام یقول: لو لم یبق من الدنیا الایوم واحد لطول الله عزوجل ذلک الیوم حتی یخرج رجل من ولدی فیملاها عدلا و قسطا کما ملئت جورا و ظلما، کذلک سمعت رسول الله یقول;  দুনিয়া ধ্বংস হতে মাত্র একদিনও যদি অবশিষ্ট থাকে তাহলে মহান আল্লাহ ঐ দিনকে এত বেশী দীর্ঘায়ীত করবেন যে, আমাদের (আহলে বাইতের) মধ্য থেকে এক ব্যক্তিকে অবশ্যই প্রেরণ করবেন যে এ পৃথিবী যেভাবে অন্যায়-অবিচারে পরিপূর্ণ হয়ে যাবে ঠিক সেভাবে ন্যায় ও সুবিচার দিয়ে তা পূর্ণ করে দেবে।

674503

বিশ্লেষণও নোট :

ইমাম হুসাইনের বাণীতে

|

আবির্ভাবের পূর্বে

|

ইমাম মাহদীর(আ.)

|

Print

যিয়ারাতে আলে ইয়াসিনের গুরুত্ব

অনুসন্ধান  صفحه اصلی خبر মতামতজরিপ  :   Tuesday, December 12, 2017 নির্বাচিত সংবাদ : 27924

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: তিনি বলেন, একজন প্রকৃত শিয়ার উচিত সর্বদা প্রথম ওয়াক্তে নামাজ আদায় করা। কেননা যিয়ারাতে আলে ইয়াসিনে আমরা ইমাম মাহদীকে নামাজের প্রথম ওয়াক্তে সালাম দেই। সুতরাং যারা ইমামকে নামাজের প্রথম ওয়াক্তে সালাম দেয় তাার যদি প্রথম ওয়াক্তে নামাজ আদায় না করে সেটা খুবই বেমানান।

হুজ্জাতুল ইসলাম রাফিয়ী বলেন: যিয়ারাতে আলে ইয়াসিন হচ্ছে হাদিসে কুদসি এবং আল্লাহর বানী আর এই যিয়ারাতে মহান আল্লাহ ইমাম মাহদীর প্রতি সালাম দিয়েছেন।

এই যিয়ারাতে বর্নিত হয়েছে: «اَلسَّلامُ عَلَيْكَ فى آناءِ لَيْلِكَ وَ اَطْرافِ نَهارِكَ؛ আপনার উপর দিন রাত এবং সর্বদা সালাম বর্সিত হোক। সুতরাং প্রতিটি প্রতীক্ষাকারীর উচিত শুক্রবার বিকালে এই যিয়ারাতটি পাঠ করা।

এই যিয়ারাতে আরো বলা হয়েছে: «السَّلامُ عَلَيْكَ یا الرَّحْمَةُ الْوَاسِعَةُ؛ হে আল্লাহর বিস্তির্ণ রহমত আপনার উপর সালাম।

সুতরাং ইমাম মাহদী(আ.) হচ্ছেন রহমত। কাজেই তাকে কখনোই সহিংসতার মাথে পরিচয় করানো ঠিক হবে না যে, তিনি তলোয়ার দিয়ে সবার মাথো কাটবেন ইত্যাদি। দু:খের বিষয় হল মাওলা আলীকেও এভাবে পরিচয় করানো হয়েছে। যে তিনি বড় যোদ্ধা ছিলেন তলোয়ার চালাতেন ইত্যাদি। অথচ গাদীরের যিয়ারাতে আমরা বলি: আমি সাক্ষ দিচ্ছি যে আপনি হচ্ছেন, দয়ালু পিতা।

এই যিয়ারাতে আমরা মাওলা আলীর ইমামতের সাক্ষ দিয়ে বলি: «أُشْهِدُكَ يَا مَوْلايَ أَنَّ عَلِيّا أَمِيرَ الْمُؤْمِنِينَ حُجَّتُهُ؛  সাক্ষ দিচ্ছি আপনি হচ্ছেন আল্লাহর স্পষ্ট দলিল তথা ইমাম।

এরপর এভাবে এই যিয়ারাতে সকল ইমামের বিষয়ে সাক্ষ দেয়া হয়। তারপর কিয়ামত ও পূনরুত্থান দিবসের বিষয়ে সাক্ষ দেয়া হয়: «أَنَّ الْمَوْتَ حَقٌّ وَ أَنَّ نَاكِرا وَ نَكِيرا حَقٌّ وَ أَشْهَدُ أَنَّ النَّشْرَ حَقٌّ وَ الْبَعْثَ حَقٌّ وَ أَنَّ الصِّرَاطَ حَقٌّ وَ الْمِرْصَادَ حَقٌّ وَ الْمِيزَانَ حَقٌّ وَ الْحَشْرَ حَقٌّ وَ الْحِسَابَ حَقٌّ وَ الْجَنَّةَ وَ النَّارَ حَقٌّ وَ الْوَعْدَ وَ الْوَعِيدَ بِهِمَا حَقٌّ»

674407

বিশ্লেষণও নোট :

গুরুত্ব ও

|

অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ

|

যিয়ারাতে আলে ইয়াসীন

|

Print

ইমাম মাহদীর(আ.) প্রতীক্ষাকারীদের প্রতি আয়াতুল্লাহ বাহজাতের উপদেশ

অনুসন্ধান  صفحه اصلی خبر মতামতজরিপ  :   Tuesday, December 12, 2017 নির্বাচিত সংবাদ : 27923

মাহদাবিয়াত বিভাগ: মানুষ যখন প্রকৃতভাবে ইমাম মাহদীর জন্য প্রতীক্ষা করে এবং তার প্রতীক্ষা আধ্যাত্মিক হয় তখন যদি ইমাম মাহদীর আবির্ভাব সে নাও দেখতে পারে তবে তার জীবনে অবশ্যই সুখ শান্তি ও সফলতা আসবে। এবং সে ইমাম মাহদীর বিশেষ অনুগ্রহ প্রাপ্ত হবে।

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: প্রতীক্ষাকারীদের প্রধান দায়িত্ব হচ্ছে কি করলে ইমাম মাহদীর প্রকৃত অনুসারী হওয়া যাবে। যেমন ইমাম মাহদীর চারজন বিশেষ প্রতিনিধি ছিলেন যাদের মত হওয়া সবার পক্ষে সম্ভব নয়।

সুতরাং আমাদেরকে এমন জলসার ব্যবস্থা করতে হবে যেখানে ওলামাগণ থাকবেন এবং তারা আলোচনা করবেন কি কি কাজ করতে হবে যাতে ইমাম মাহদী আমাদের প্রতি রাজি হবেন। এভাবে এব মহান সাধক মহানবীর উপর সাওয়াসসুল করলে মহানবী তাকে কয়েকজন ইমাম এবং সর্বশেষ তাকে ১২তম ইমামের স্মরণাপন্ন হওয়ার নির্দেশ দেন।

আয়াতুল্লাহ বাহজাতের মতে প্রতীক্ষা দুই প্রকার ব্যক্তিগত এবং সমষ্টিগত।

ব্যক্তিগত প্রতীক্ষা মানুষকে নিজের জন্য কাজ করতে হবে এবং সর্বদা ইমাম মাহদীর সাথে সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টা করতে হবে যাতে সে ইমাম মাহদীর সাক্ষাত পায় এবং তার নির্দেশ প্রাপ্ত হতে পারে। আর এর জন্য তাকে অবশ্যই নৈতিক চরিত্রের অধিকারী হতে হবে এবং সকল প্রকার অনৈতিক চরিত্র থেকে দূরে থাকেত হবে।

সমষ্টিগত তথা সামাজিক প্রতীক্ষা হচ্ছে সমাজকে সকল প্রকার অন্যায় ও জুলুম থেকে মুক্ত করে ন্যায়পরায়ণ রাষ্ট গঠণ করা।

বিভিন্ন রেওয়ায়েতেও ব্যক্তিগত ও সামাজিক মুক্তির প্রতি ইশারা করা হয়েছে।

675457

বিশ্লেষণও নোট :

প্রতীক্ষাকারীদের প্রতি

|

আয়াতুল্লাহ বাহজাতের উপদেশ

|

ইমাম মাহদীর(আ.)

|

Print

কিয়ামতে আহলে বাইতের সাথে পূণরুত্থিত হওয়ার উপায়

অনুসন্ধান  صفحه اصلی خبر মতামতজরিপ  :   Tuesday, December 12, 2017 নির্বাচিত সংবাদ : 27922

শাবিস্তান বার্তা সংস্থার রিপোর্ট: সূরা বাকারার ১৫৭ নং আয়াতে আল্লাহ পাক বলেছেন: أُولَئِكَ عَلَيْهِمْ صَلَوَاتٌ مِنْ رَبِّهِمْ وَرَحْمَةٌ وَأُولَئِكَ هُمُ الْمُهْتَدُونَ

তারা সে সমস্ত লোক, যাদের প্রতি আল্লাহর অফুরন্ত অনুগ্রহ ও রহমত রয়েছে এবং এসব লোকই হেদায়েত প্রাপ্ত।

এই আয়াতটিতে ধৈর্যশীলদের জন্য পুরস্কারের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। বলা হয়েছে- তারা আল্লাহর পক্ষ থেকে দয়া ও বিশেষ অনুগ্রহ লাভ করবেন। আল্লাহর এই বিশেষ অনুগ্রহই তাদেরকে সুপথে চলার শক্তি ও সামর্থ্য যোগাবে।

ইমাম হুসাইন(আ.) বলেছেন: مِنَّا اثنَاعَشَرَ مَهدِیّاً أوَّلُهُم امیرالمومنین علی ٌو آخِرُهُمُ التّاسِعُ مِن وُلدِی وَهُوَالقائمُ بِالحَقِّ یُحیِی اللهُ بِهِ الأرضَ بَعدَ مَوتِها وَ یُظهِرُ بِهِ دینَ الحَّق عَلیَ الدّینِ کُلِّهِ وَ لوَ کَرِهَ المُشرِکُونَ لَهُ غَیبَةٌ یُرتَدُّ فِیهَا قَومٌ وَ یَثبُتُ عَلیَ الدِّینِ فِیِها آخَرُونَ فَیُوذَونَ وَ یُقالُ لَهُم مَتی هذَا الوَعدُ إن کُنتُم صادِقِین َأما إنَّ الصَّابِرِینَ فِی غَیبَتِهِ عَلیَ الأذَی وَ التَکذِیبِ بِمَنزِلَةِ المُجَاهِدینَ بِالسَّیفِ بَینَ یَدَی رَسُول ِالله ؛   আমাদের আহলে বাইতের থেকে ১২ জন মাহদী(হেদায়াতকারী) আসবে তাদের প্রথম জন হচ্ছেন আমিরুল মু’মিনিন হযরত আলী(আ.) আর শেষ জন হচ্ছে আমার নবম সন্তান মুহাম্মাদ মাহদী। তিনি সত্যের জন্য কিয়াম করবেন এবং মহান আল্লাহ বিশ্বকে তার মাধ্যমে জীবন্ত করবেন। তার মাধ্যমে ইসলাম সকল ধর্মের উপর বিজয়লাভ করবে যদিও মুশরিকরা তাতে অসন্তুষ্ট হয়। আমাদের কায়েম আল মাহদী অন্তর্ধানে থাকবে ঐ সময়ে অনেকেই গোমরাহ হয়ে যাবে। তবে অনেকেই সঠিক পথে অটল থাকবে। যারা ইামম মাহদীর প্রতিক্ষায় থাকবে তারা রাসূলের সাথে থেকে জিহাদ করার সমান সওয়াব পাবে।

ধৈর্যশীলরা অবশ্যই সফলকাম হবে পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে: বহু মানুষের জন্য হেদায়াতপ্রাপ্ত হওয়া আরজু কিন্তু যারা ধৈর্যশীল তাদের জন্য হেদায়াত ও সফলতা অনিবার্য।

675101

বিশ্লেষণও নোট :

পূণরুত্থিত হওয়ার উপায়

|

আহলে বাইতের সাথে

|

রোজ কিয়ামতে

|

Print

Türkiye’den Filistin’e 10 Milyon Dolar Hibe

SHAFAQNA-Türkiye, Filistin’in sosyal ve ekonomik kalkınmasına destek vermek ve acil ihtiyaçların karşılanması için yaklaşık 10 milyon dolar hibe sağlayacak.

Resmi Gazetede bugün yayımlanan “Türkiye Cumhuriyeti Hükümeti ile Filistin Devleti Hükümeti Arasında Hibe Anlaşmasının” yürürlüğe girmesine ilişkin karara göre, Türkiye, iç hukuku ve yılllık bütçe ödenekleri çerçevesinde Filistin’e 10 milyon dolara kadar hibe sağlayacak. Filistin, hibeyi Gazze’nin de ihtiyaçlarını göz önünde bulundurarak, sosyal ve ekonomik kalkınmasında yardımcı olunması ve oluşabilecek acil ihtiyaçların karşılanmasına binaen, bütçe finansmanı ve kurumsal kapasitenin geliştirilmesi amaçları için kullanacak.

Islamic News